এক বছর ৪ মাস পর আবারও আলোচনায় ছাত্রলীগনেত্রী শ্রাবণী শায়লা

ম‌নে রাখ‌বেন, আজ যা কর‌বেন, কাল তাই পা‌বেন।’’

তার স্ট্যাটাসের নিচে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সহকারি অধ্যাপক লিখেছেন, ‘মনটা ভীষণ খারাপ এসব দেখে। শ্রাবণীর দুচোখে ১৮টি সেলাই লেগেছে দেখলাম। মেয়েটার চোখের কোন ক্ষতি না হোক এই দোয়া করছি।’

তার কমেন্টস-এর পরেই আরেকজন লিখেছেন, ‘ওই শ্রাবনী আপুই বছর খানিক আগে আরেক বোনের গায়ে হাত তুলেছিল এবং তার বস্ত্র হনন করেছিল। আজ তিনি নিজেই, নিজের দলের নেতা কর্মী দ্বারা হামলার শিকার হয়েছেন। এবং সেটিও খুবই গুরুতরভাবে।

সত্যিই প্রকৃতির বিচার বড়ই নির্মম।’ জবাবে ওই শিক্ষক লিখেছেন, ‘আমরা আমাদের কোন শিক্ষার্থীর এভাবে রক্তাক্ত দেখতে চাই না।’ মধুর ক্যান্টিনে সোমবার সন্ধার ঘটনায় শায়লা ছাড়াও ছাত্রলীগের বিগত কমিটির সদস্য ও ডাকসুর বর্তমান সদস্য তানভীর হাসান সৈকত,

কবি সুফিয়া কামাল হলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর সদস্য তিলোত্তমা শিকদার, ডাকসুর আরেক সদস্য ফরিদা পারভীন, ডাকসুর কমনরুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক বি এম লিপি আক্তারসহ কয়েকজন আহত হন।

প্রসঙ্গত, সোমবার বিকেলে ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটির আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করা হয়। সংগঠনটির সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন জানান, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদনের পর ৩০১ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে সহসভাপতি হয়েছেন ৬১ জন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন ১১ জন, সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ পেয়েছেন ১১ জন। এ ছাড়া বিষয়ভিত্তিক সব সম্পাদক এবং সহ-সম্পাদক ও উপসম্পাদকের নামও ঘোষণা করা হয়।

এর আগে ২০১৮ সালের ১১ ও ১২ মে ছাত্রলীগের ২৯ তম জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে নিজেরা কমিটি করতে ব্যর্থ হলে ৩১ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাংগঠনিক অর্পিত ক্ষমতাবলে রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে সভাপতি এবং গোলাম রাব্বানীকে সাধারণ সম্পাদক করে কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করেন।

‘নিপীড়নবিরোধী শিক্ষার্থীবৃন্দ’র ব্যানারে বেশ কিছু শিক্ষার্থী ভিসির কার্যালয় অবরোধ করে। আধঘণ্টার বেশি ভিসিকে অবরুদ্ধ করে তার পদত্যাগ চেয়ে বিভিন্ন স্লোগান দেয় আন্দোলনকারীরা।

পরে ছাত্রলীগের একটি গ্রুপের নেতৃত্বে ভিসিকে উদ্ধার করে তার কার্যালয়ের নিয়ে যায়। এ সময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা আন্দোলনকারীদের ব্যাপক মারধর করে। তাদের মারধর ও ইট-পাটকেল নিক্ষেপে আন্দোলনকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন সাংবাদিকসহ প্রায় ৪০ জন আহত হন। ঢাবির ওই ঘটনার বেশ কিছু ছবি গণমাধ্যমসহ সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশ পায়। এর মধ্যে কুয়েত মৈত্রী হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী শায়লার

এক সাধারণ নারী শিক্ষার্থীর ওপর চড়াও হওয়ার একটি ছবি সবচেয়ে বেশি ভাইরাল হয়। ওই ছবিতে দেখা যায়, শ্রাবণী শায়লা এক নারী শিক্ষার্থীর চুল ধরে টেনে ও ওড়না ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছেন।

বিষয়টি নিয়ে সেসময় দেশজুড়ে নিন্দার ঝড় উঠে। এক বছর ৪ মাসের মাথায় ফের ভাইরাল হয়েছেন ছাত্রলীগ নেত্রী শ্রাবণী শায়লার ছবি। তবে এবার তিনি কাউকে মারতে উদ্যত হয়েছেন বা মারছেন সেজন্য নয়।

তিনি নিজেই এবার নিজ সংগঠন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের হামলার শিকার হয়ে রক্তাক্ত হয়েছেন। ভিসির বাস ভবনের সামনের ঘটনা উল্লেখ করে তখন লাঞ্ছনার শিকার ঢাবির ডিজাস্টার সায়েন্স অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ওই নারী শিক্ষার্থী গণমাধ্যমকে বলেছিলেন,

‘ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে আমাদের এক সিনিয়র আপুকে ছাত্রলীগের ছেলেরা ক্রমাগত লাথি দিলে আমার বন্ধুরা তাকে বাঁচাতে এগিয়ে যায়। আমাকে একা পেয়ে শায়লা ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং এলোপাতাড়ি কিলঘুষি মারতে থাকে।

আমি দাঁড়িয়ে থাকতে পারছিলাম না। সে আমাকে তখনো মেরে যাচ্ছিল আর বলছিল, কেন আন্দোলন করলি? আন্দোলন করে কি হবে? আমরা তা দেখে নেব।

এরপর সে আমার চুল ধরে টেনে নিয়ে যায়, জামা টান দিয়ে ছিঁড়ে ফেলে।’ সোমবার বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির নাম প্রকাশিত হয়। ওই তালিকায় নেই শ্রাবণী শায়লাসহ আরো অনেক নেতার নাম।

কমিটি ঘোষণা হওয়ার পর থেকে বিক্ষোভ করেন ছাত্রলীগের পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা। বিক্ষোভের একপর্যায়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার দিকে মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করতে যান পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা।

এ সময় দুগ্রুপের সংঘর্ষে ডাকসুর তিন নেতাসহ অন্তত আটজন আহত হন। এ হামলায় রক্তাক্ত হন শ্রাবণী শায়লা। ইতিমধ্যেই শ্রাবণীর ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। গণমাধ্যমেও শিরোনাম হয়েছেন।

শ্রাবণীর রক্তাক্ত ছবি আর সাধারণ ছাত্রীর উপর হামলার ছবি এক সাথে করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট দিচ্ছেন অনেকে। সমবেদনার চেয়ে যেখানে তাকে নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্যই বেশি আসছে।

ঢাবির একজন সাবেক শিক্ষার্থী এবং বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত একজন কর্মকর্তা তার ফেসবুল ওয়ালে লিখেছেন, ‘‘ইতিহাস কী নির্মম! এক‌দিন যারা নেতা‌দের নি‌র্দে‌শে আরেকজন‌কে মে‌রে‌ছিল, আজ‌কে তারাই মার খেল নি‌জে‌দের নেতাদের হা‌তে।

ছাত্রলী‌গের নেতারা আজ নতুন রেকর্ড গ‌ড়ে‌ছেন নিজে‌দের নারী নেত্রী‌দের ওপর হামলা ক‌রে। তাও আবার মধুর ক্যা‌ন্টি‌নে, ক‌মি‌টির দ্বন্দ্বে। আমি জা‌নি না ছাত্রলীগের ইতিহা‌সে আগে কোন‌দিন নিজ দ‌লের ছাত্রনেতা‌দের হা‌তে ছাত্রী‌নেত্রীরা কখ‌নো মার খে‌য়ে‌ছেন কী না! কী ভয়াবহ ঘটনা!

ত‌বে ঘটনার আারও একটা দিক আছে। আজ যারা হামলার শিকার তা‌দের নামগু‌লো দে‌খুন। কী নির্মম! এদের অ‌নে‌কেই একদিন ছাত্রলীগ নেতা‌দের সা‌থে মি‌লে অন্যদের ওপর হামলা চা‌লি‌য়ে‌ছি‌লেন।

সে‌দিন যারা ওই হামলা‌কে বৈধতা দি‌য়ে‌ছি‌লেন আজ তারাই নিন্দা কর‌ছেন। তা এবার কা‌কে গা‌লি দে‌বেন? ‌নিজ দ‌লের নেতা‌দের! তা‌দের বিরু‌দ্ধে সরব হ‌বেন! না‌কি চুপ থাক‌বেন? আমি সবসময় ব‌লি প্রকৃ‌তির বিচার নির্মম!

কী ক্যাম্পা‌সে, কী দু‌নিয়ায়, কাউকে একটা চড় মার‌লে সেই চড় খে‌য়েই আাপনা‌কে দু‌নিয়া থে‌কে বিদায় নি‌তে হ‌বে। ত‌বে দুই প‌ক্ষের মারামা‌রির ম‌ধ্যে আা‌রেক ইতিহাস র‌চিত হ‌লো আজ।

“সৌদি আরবের তেল ট্যাংকারে হামলা চালিয়েছে ইসরাইল”

সঙ্গে মার্কিন উত্তেজনার মধ্যে অপরিশোধিত তেল সরবরাহের নিরাপত্তাকে খর্ব করার চেষ্টার অংশ হিসেবেই এ হামলা চালানো হয়েছে। এর আগে আরব আমিরাতের জলসীমার কাছে চারটি বাণিজ্যিক জাহাজ নাশকতামূলক হামলা হয়েছে।

যার দুটির স্বত্বাধিকারী সৌদি আরব। আরব নিউজের খবরে বলা হয়েছে, ইরান থেকে একশ ১৫ কিলোমিটার দূরে ফুজাইরার কাছে এই চারটি জাহাজে নাশকতা চালানো হয়েছে। এসব বাণিজ্যিক জাহাজে বিভিন্ন দেশের নাগরিকরা ছিলেন।

আরব আমিরাত আন্তর্জাতিক ও স্থানীয়দের সঙ্গে ঘটনার তদন্ত করছে। আরব আমিরাত জানিয়েছে, বাণিজ্যিক জাহাজকে নাশকতার লক্ষ্যবস্তু বানানো এবং ক্রু সদস্যদের জীবন হুমকিতে পড়ার এই ঘটনা ভয়ঙ্কর।

এক্ষেত্রে এ ঘটনাকে সামুদ্রিক জলসীমায় নিরাপত্তা ও সুরক্ষার জন্য বড় হুমকি হিসেবে বিবেচনা করবে আরব আমিরাত। এদিকে ইরান এ হামলার নিন্দা জানানোর পাশাপাশি তদন্তের দাবি করেছে।

পারস্য উপকূলে সৌদি আরবের তেল ট্যাংকারে ইসরাইল হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ইরানের পার্লামেন্টারি মুখপাত্র বাহরুজ নেমাতি। মঙ্গলবার এক অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেছেন বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

বাহরুজ নেমাতি বলেন, আমিরাত উপকূলে সৌদি জাহাজে যে হামলার ঘটনা ঘটেছে, তার মূলে রয়েছে ইসরাইল। সোমবার সৌদি আরব বলেছে, আরব আমিরাতের উপকূলে যে জাহাজে হামলা হয়েছে, তার মধ্যে দুটি তাদের।

আরো সংবাদ পরতে পারেন

মতামত দেওয়া বন্ধ আছে