ইফতার মাহফিলে সিনেমার গানের ভিডিও ভাইরাল: ক্ষমা চাইলেন হেলেনা জাহাঙ্গীর

ইফতার মাহফিলের অনুষ্ঠানের নামে সিনেমার গান গেয়ে সমালোচনার মুখে অবশেষে ক্ষমা চেয়েছেন কথিত নারী নেত্রী ও জয়যাত্রা ফাউণ্ডেশনের চেয়ারম্যান হিসেবে পরিচিত হেলেনা জাহাঙ্গীর।

গতকাল শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে নিজের ফেসবুকে পাতায় একটি পোস্ট দিয়ে ক্ষমা চান তিনি। সম্প্রতি তিনি একটি অনিবন্ধিত অনলাইন টেলিভিশন চালু করে সেখানে দেশী বিদেশে অবস্থানকরা প্রবাসীদের সাক্ষাতকার নিয়ে টেলিভিশন ব্যাক্তিত্ব সেজেছেন।

হেলেনা জাহাঙ্গীর বলেন, ‘এই পোস্টের একটি গান খুব ভাইরাল-ট্রল হচ্ছে। এই অদেখা ভুলের জন্য আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাচ্ছি, আর যারা কষ্ট পাচ্ছেন, তাদের কাছে আমি আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি।’

জানাগেছে জয়যাত্রা নামে একটি সংগঠনের ব্যানারে ইফতার মাহফিল ডেকে নারীদের নিয়ে সিনেমার গান গেয়ে একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হলে সমালোচনার মুখে পড়েন এই নারী।

হেলেনা জাহাঙ্গীর আরও বলেন, ‘ওই দিন ফাউন্ডেশনের চারজনের জন্মদিন থাকার কারণে ইফতারের পর কেক কাটা ও আনন্দে সামান্য গান করা হয়েছিল, অনেকদিন পর দেখা হওয়ার কারণে।

ব্যানারটি খুলে জয়যাত্রা ফাউন্ডেশনের চারজনের কেক কাটা উচিত ছিল বলে আমি মনে করি। ভুল মানুষেরই হয়। আল্লাহ সকালের ভুল ক্ষমা করুন, আমিন।’

জয়যাত্রা ফাউন্ডেশনের গত ২৫ মের ওই ইফতার অনুষ্ঠানের কয়েকটি ছবি দিয়েও পোস্ট করেন কথিত নেত্রী হেলেনা জাহাঙ্গীর। সেখানে তিনি বলেন, ‘সত্যের পথে অবিরাম যাত্রাকে ধারণ করে জয়যাত্রা ফাউন্ডেশনের পথযাত্রা শুরু হয়ে অনেক আগেই।

ব্যস্ততায় অনেক দিন মজা করা হয় নাই। জয়যাত্রা ফাউন্ডেশনের আজীবন সদস্য সেলিনার আয়োজনে স্কাইশেইফ রেস্টুরেন্টে জয়যাত্রার ইফতার মাহফিল, জয়যাত্রার চারজন সদস্যের জন্মদিন,

আমাকে ফুলের শুভেচ্ছা এই প্রথম দিলো সেলিনা এফবিসিসিআই’র দ্বিতীয়বারের মতো হওয়ার পর। আমাদের এই জয়যাত্রা যেমন মানব সেবায় নিয়োজিত তেমনি আছে আনন্দ ও বন্ধন। আল্লাহ আমাদের এই যাত্রাকে কবুল করে নিন। শত্রু নিপাত যাক। সেলিনার জন্য অনেক অনেক শুভকামনা।’

সম্প্রতি হেলেনা জাহাঙ্গীরের সঙ্গে দ্বৈত গান গাওয়ার প্রস্তাব দেন এটিএন বাংলার চেয়ারম্যান ড. মাহফুজুর রহমান। ফেসবুকে একটি পোস্টের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেন হেলেনা নিজেই।

পোস্টে তিনি বলেন, ‘এইমাত্র মাহফুজুর রহমানের সঙ্গে ডুয়েট গান করার অফার পেলাম! কী করব বুঝতে পারছি না। বন্ধুদের পরামর্শ চাই।’

ইসলামের মহিমায় আকৃষ্ট হয়ে পবিত্র রমজানে ইসলাম গ্রহণ করলেন ব্রিটিশ নারী

ইসলাম ধর্মের মহিমায় আকৃষ্ট হয়ে মুসলিম হলেন ৪৯ বছর বয়সী এক ব্রিটিশ নারী। এবারের পবিত্র রমজান মাস শুরু হওয়ার ষষ্ঠ দিনে তিনি ইসলাম গ্রহণ করেন। খবর খালিজ টাইমসের।

ইসলাম গ্রহণ করার পর ওই নারী তার নাম রেখেছেন ইমান, যার অর্থ বিশ্বাস। তিনি বলেন, ইসলামের প্রতি ভাল লাগা টা শুরু হয় গির্জায় যেতাম যখন তখন থেকে। অনেক ধর্মোপদেশ ইসলাম ধর্ম থেকে দেয়া হত।

তিনি আরো বলেন, আমার কাছে ইসলামের সবচেয়ে আকর্ষণীয় বিষয় হল এর তাৎপর্য। যা আমার হৃদয়ে শান্তি বয়ে আনে।

ইমাম বলেন, আমি কয়েক বছর আগেই ইসলাম গ্রহণ করতে চেয়েছিলাম কিন্তু আমার মায়ের কারণে তা পারিনি কেননা তিনি চাননি আমি ইসলাম গ্রহণ করি। কিন্ত মায়ের মৃত্যুর পর আমি ইসলামিক ইনফরমেশন সেন্টারে বেশি করে যাওয়া শুরু করি যেখানে ইসলাম সম্পর্কে অনেক বিষয় পড়ি।

তিনি আরো বলেন, আমি মুসলিম হিসেবে এবার প্রথম রোজা রাখছি যা আমি গত গত তিন বছর থেকে রাখার চেষ্টা করেছি। আমি আল্লাহ কাছে অনেক দোয়া করেছি এবং আল্লাহ তা কবুল করেছে তাই এবার মুসলিম হিসেবে আমি রোজা রাখতে পেরেছি।

ইরানজুড়ে কুদস দিবস পালিত; ‘ইসরাইল ধ্বংস হোক’ স্লোগানে উত্তাল রাজধানী তেহরান

রাজধানী তেহরানের নানা প্রান্ত থেকে মানুষের মিছিল এসে মিলবে ইনকিলাব স্কয়ারে। স্কয়ারের পাশেই তেহরান বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে জুমার নামাজের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

তেহরানের মিছিলে যারা এরইমধ্যে অংশ নিয়েছেন তাদের হাতে শোভা পাচ্ছে নানা ধরণের প্ল্যাকার্ড। এসব প্ল্যাকার্ডে আমেরিকা ও ইহুদিবাদী ইসরাইলের বিরুদ্ধে বিভিন্ন বক্তব্য লেখা রয়েছে।

ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের সাড়ে নয়শ’রও বেশি শহরে শুরু হয়েছে বিশ্ব কুদস দিবসের মিছিল। শহরগুলোর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মিছিলের সূত্রপাত হয়েছে। এসব মিছিল এসে মিলবে প্রতিটি শহরের এমন একটি ময়দানে যেখানে আজকের জুমার নামাজের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

আর তাদের কণ্ঠেও প্রতিধ্বনিত হচ্ছে ইসরাইল ও আমেরিকা বিরোধী নানা স্লোগান। তবে এবারের স্লোগানে যুক্ত হয়েছে নতুন একটি ইস্যু, তাহলো মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ‘ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি’। মিছিলে অংশগ্রহণকারীরা বলছেন, ফিলিস্তিনিদের স্বার্থবিরোধী এই মহাষড়যন্ত্র ব্যর্থ হবে এবং ফিলিস্তিনি জাতি তার কাঙ্খিত স্বাধীনতা ফিরে পাবে।

কুদস দিবস পালন শুরুর প্রথম থেকেই যে শ্লোগানটি ইরানে জনপ্রিয়তা পেয়েছে তাহলো ‘মার্গ বার আমরিকা, মার্গ বার ইসরাইল’। এর অর্থ হচ্ছে ইসরাইল ধ্বংস হোক, আমেরিকা নিপাত যাক। আজকের কুদস দিবসেরও প্রধান শ্লোগান হচ্ছে এটি।

আজকের মিছিলের খবর সংগ্রহ করতে সারা দেশে ব্যস্ত রয়েছেন চার হাজারের বেশি সাংবাদিক। এর মধ্যে আড়াইশ’ বিদেশি সাংবাদিক রয়েছেন।

আজকের মিছিল শেষে ইরানি জনগণ ইসরাইলি হত্যা-নির্যাতনের নিন্দা জানানোর পাশাপাশি আমেরিকার ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি প্রত্যাখ্যান করে বিবৃতি প্রকাশ করবেন বলে কথা রয়েছে।

আমেরিকা ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে নয়া ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে ‘ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি’ নামের একটি পরিকল্পনা তৈরি করেছে। এটাকে তারা শতাব্দির সেরা চুক্তি নামে অভিহিত করছে। কিন্তু ফিলিস্তিনিরা এরই মধ্যে তা প্রত্যাখ্যান করেছে

আরো সংবাদ পরতে পারেন

মতামত দেওয়া বন্ধ আছে