মৌলভীবাজারে গভীর রাতে স্মরণকালের ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনা, নিহত ৭

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় স্মরণকালের বড় ট্রেন দুর্ঘটনা সাতজন নিহত হয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছে শতাধিক। উদ্ধার কাজে বিজিবি নামানো হয়েছে। হাসপাতালে স্বজনদের ভিড় জমেছে।

সিলেট থেকে ঢাকাগামী উপবন এক্সপ্রেসের কয়েকটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে এ পর্যন্ত তিন নারীসহ অন্তত সাতজন নিহতের খবর পাওয়া গেছে। মৌলভীবাজারের জেলা পুলিশ সুত্রে জানা গেছে এ ঘটনায় আহত হয়েছেন শতাধিক মানুষ।

রোববার দিবাগত রাত সাড়ে ১১টায় মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার বরমচাল এলাকায় রেলপথের একটি কালভার্ট ভেঙে উপবন এক্সপ্রেসের কয়েকটি বগি খালে পড়ে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

সিলেট আখাউড়া রেলপথের শমশেরনগর স্টেশন সুত্রে জানা গেছে, রাত সাড়ে ১১টার দিকে ঢাকা গামী রেল আন্তনগর উপবন এক্সপ্রেস বরমচাল স্টেশন অতিক্রম করে কুলাউড়া আসার পথে রেলপথের একটি কালভার্ট ভেঙে পেছনের কয়েকটি যাত্রীবাহী বগি খালে পড়ে যায়।

ঘটনার পর থেকে সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। অতিরিক্ত জেলা পুলিশ সুপার রাশেদুল ইসলাম জানান, দুর্ঘটনায় এ পর্যন্ত সাতজন নিহত হয়েছেন। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে তিনজন নারী, বাকি চারজন পুরুষ।

লাশগুলো পুলিশের হেফাজতে আছে। রাশেদুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। হাসপাতালে স্বজনরা নিহত এক নারীর লাশ শনাক্ত করেছেন। তিনি কুলাউড়ার কাদিপুর ইউনিয়নের গুপ্ত গ্রামের বাসিন্দা বারি মিয়ার স্ত্রী মনোয়ারা পারভীন (৪৫)।

রাত ২টা পর্যন্ত কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে চিকিৎসা নিয়েছেন ৬০ জন। শরীরের বিভিন্ন জায়গায় মারাত্মক আঘাত থাকায় ২০ জনকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে। হতাহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

কয়েকজন যাত্রীকে জিজ্ঞাসা করলে তারা বলেন, প্রথমে তারা বুঝতে পারেননি। অনেক সময় আটকে থাকার পর রেল থেকে নেমে দেখতে পান অনে লোকজন। দেখতে পান পেছনের দিকে কয়েকটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে গেছে।

তখন অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিসও আসে। তারা তখন বুঝতে পারেন বড় দুর্ঘটনা ঘটেছে। তারা আরো জানান, বিগত কয়েক দিন যাবত ঢাকার সাথে সরাসরি বাস যোগাযোগ বন্ধ থাকায় ট্রেনে যাত্রীর সংখ্যা বেশি ছিল।

দুর্ঘটনায় আহতদের উদ্ধারকাজ অব্যাহত আছে। উদ্ধারকাজে অংশ নিয়েছে ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি ইউনিট। উদ্ধারকাজে স্থানীয় লোকজনও সহায়তা করছে। কুলাউড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বজনদের ভিড় রয়েছে।

ওই সময়ের ট্রেন যাত্রীদের স্বজনরা মূল ফটক থেকে ভেতর পর্যন্ত রাস্তার দুই অ্যাম্বুলেন্সে করে নিয়ে আসা আহতদের দেখতে অ্যাম্বুলেন্স থামিয়ে পরিচিতদের খোঁজ করেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আহতদের দেখতে আসেন মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক মো. তোফায়েল ইসলাম,

পুলিশ সুপার মো. শাহজালালসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এ সময় তারা নিশ্চিত করেছেন, কুলাউড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এখন ৪ জনের লাশ রয়েছে। এদের মধ্যে ৩ জন নারী ও ১ জন পুরুষ। ট্রেন দুর্ঘটনার পর উদ্ধার কাজে বিজিবি নামানো হয়েছে। মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক তোফায়েল ইসলাম এ কথা জানান। সুত্র: নয়া দিগন্ত

পাকিস্তানের সর্বোচ্চ বেসামরিক পদকে ভূষিত হলেন কাতারের আমীর!

পাকিস্তানের সর্বোচ্চ বেসামরিক পদক ‘নিশান-ই-পাকিস্তান’ এ ভূষিত হলেন কাতারের আমীর শেখ তামিম বিন হামাদ আলে ছানি। আজ রবিবার (২৩ জুন) কাতারের আমীরের হাতে এ পদক তুলে দেন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভী।

২ দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে গত শনিবার (২২ জুন) পাকিস্তানে এসেছেন কাতারের আমীর। বিমানবন্দরে কাতারের আমীরকে স্বাগত জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

এরপর ইমরান খানের সাথে বৈঠক করেন কাতারের আমীর। এতে অর্থনৈতিক ও আন্তর্জাতিক সম্পর্কন্নোয়ন নিয়ে চুক্তি হয়। জানা গেছে, পাকিস্তানে দুই হাজার দুইশো কোটি ডলার অর্থনৈতিক বিনিয়োগ করবে কাতার।

উল্লেখ্য, ‘নিশান-ই-পাকিস্তান’ পাকিস্তানের সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় বেসামরিক পদক। যা ১৯৫৭ সালের ১৯ মার্চ চালু হয়। প্রতি বছর ১৪ আগস্ট এ পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। এছাড়াও নানান সময় বিদেশি নেতৃবৃন্দকে এ পদক দেওয়া হয়ে থাকে।

বিশ্ব নেতাদের মধ্যে এ পদক পেয়েছেন, ইংল্যান্ডের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ, ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মোরারজি দেসাই, দক্ষিণ আফ্রিকার অবিসংবাদিত নেতা নেলসন ম্যান্ডেলা,

সৌদি আরবের বাদশাহ আব্দুল্লাহ বিন আবদুল আজিজ, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান, কিউবার প্রেসিডেন্ট ফিদেল কাস্ত্রো, মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির বিন মোহাম্মদ,

ব্রুনাইয়ের সুলতান হাসসান আল বলকিয়াহ, ওমানের সুলতান কাবুস বিন সাইদ আল সাইদ প্রমুখ। এছাড়াও কাতার আমীরের পিতা শেখ হামাদ বিন খলিফা আলে ছানি ও এ পদকে ভূষিত হয়েছিলেন।

মতামত দেওয়া বন্ধ আছে