সবথেকে বেশি হিংসাত্মক ধর্ম হয়ে উঠেছে হিন্দুধর্ম : অভিনেত্রী উর্মিলা

কংগ্রেসে যোগ দেওয়া বলিউড অভিনেত্রী উর্মিলা মাতোন্ডকর বলেন, নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে হিন্দুধর্ম সবথেকে বেশি হিংসাত্মক হয়ে উঠেছে। যে ধর্ম সবথেকে বেশি শান্তিপ্রিয় ছিল, সেই ধর্মই আজ হিংসাত্মক হয়ে উঠেছে। মোদি সরকারের আমলে এটাই আমি সবথেকে বেশি ঘৃণা করি।’

দেশে মত প্রকাশের কোনো স্বাধীনতা নেই। দেশে হিংসাই একমাত্র পথ হয়ে উঠেছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার পর থেকেই তাকে নিয়ে শুরু হয় ট্রোল। বছর কয়েক আগে এক কাশ্মীরি ব্যবসায়ীকে বিয়ে করেন উর্মিলা।

তিনি কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার পরই অনেক বলতে থাকেন তিনি নাকি ধর্মান্তরিত হয়েছেন। ফেসবুকে ট্রোলও শুরু হয়ে যায়। এদিকে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, উর্মিলার জনপ্রিয়তায় ভয় পেয়েছে বিজেপি। তাই এ সব অপপ্রচার চালানো হচ্ছে তার নামে।

উল্লেখ্য, কংগ্রেসের হয়ে ভোটে দাঁড়িয়ে দীর্ঘদিন পর আবার শিরোনামে আসেন উর্মিলা মাতোন্ডকর। উত্তর মুম্বাই লোকসভা কেন্দ্র থেকে ভোটে দাঁড়িয়েছেন তিনি, শুরু করেছেন ভোট প্রচারও। সঙ্গে থাকছেন স্বামী মহসিন আখতার মির। আর তাকে নিয়েই শুরু হয়েছে নানা জল্পনা।

বয়সে উর্মিলা মহসিনের থেকে ৯ বছরের বড়। তাদের পরিবারের এমব্রয়ডারির ব্যবসা রয়েছে। কিন্তু মহসিন ব্যবসার থেকে মডেলিংয়ে আগ্রহী বেশি। ২১ বছর বয়সে তিনি মুম্বাই চলে আসেন মডেল হিসেবে কেরিয়ার শুরু করতে। ২০০৭-এ মিস্টার ইন্ডিয়া প্রতিযোগিতায় যোগ দেন। কিছু মিউজিক অ্যালবাম ও বিজ্ঞাপনে দেখা যায় তাকে। ২০০৯ সালে লাক বাই চান্স ছবিতে তাকে এক ছোট চরিত্রে দেখা যায়।

উর্মিলা-মহসিনের প্রথম সাক্ষাৎ করান ফ্যাশন ডিজাইনার মনীশ মালহোত্রা। মনীশ তাদের দুজনেরই ঘনিষ্ঠ, ২০১৪ সালে তার ভাইঝির বিয়েতে দুজনেই আমন্ত্রিত ছিলেন। এর ২ বছর পর বিশেষ লোক জানাজানি না করে বিয়ে করে ফেলেন তারা। মহসিন বলেছেন, বিয়ের পর উর্মিলা তার নাম, ধর্ম কিছুই বদলাননি।

আরো পড়ুন

বিশ্বে প্রথম সুঁই-সুতোয় কুরআন তৈরি করলেন পাকিস্তানি নারী নাসিম আখতার!

বিশ্বে প্রথম সুঁই-সুতোয় তৈরি হলো কুরআন- সুই-সুতোর বুননে বিশ্বের প্রথম হাতে সেলাই করা কুরআনের পাণ্ডুলিপি সম্পন্ন করেছেন পাকিস্তানি নারী নাসিম আখতার। ৩২ বছরের নিরলস চেষ্টায় তিনি এ পাণ্ডুলিপিটি তৈরি সমাপ্ত করেন। অনেক মানুষই ইসলামের জন্য কিছু করতে চান।

ইসলামের প্রতি একান্ত ভালোবাসাই মানুষ অনেক কঠিন কাজ বাস্তবে রূপ দেন। এমনই একটি দুঃসাহসিক কাজ হাতে সেলাই করা কুরআনের পাণ্ডুলিপি। ৩২ বছরের নিরলস প্রচেষ্টায় নসিম আখতার বিশ্বের প্রথম হাতে লিখিত কুরআনের পাণ্ডুলিপিটি তৈরি করেছেন।

ইসলামের জন্য তাঁর প্রচেষ্টা ও ভালবাসায় আজ তিনি বিশ্ব মুসলিমের সামনে সম্মানের আসনে আসীন। নিঃসন্দেহে এটি একটি চমৎকার পরিবেশন। হাতে সেলাই করা এ কুরআনের ওজন ৬০ কেজি। এটি তুলা দিয়ে তৈরি। সোনালী রংয়ের কারুকাজ করে প্রতিটি পৃষ্ঠাকে সুসজ্জিত করা হয়েছে।

কাভারে সিল্কের সুতা দ্বারা সুন্দরভাবে সজ্জিত করা হয়েছে। নাসিম আখতার যখন এই কাজ শুরু করেন তখন তিনি কম বয়সী ছিলেন। ৩২ বছরের অক্লান্ত পরিশ্রমে সুই-সুতোয় কুরআনের পাণ্ডুলিপি তৈরি করে তিনি তার স্বপ্নের বাস্তবায়ন করেন।

কুরআনের অসামান্য পাণ্ডুলিপিটি সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে পেরে সে এক বিশাল মাইল ফলক অর্জন করেছেন। আর এ কাজে তিনি শান্তি ও স্বস্তি বোধ করেন। নাসিম আখতারকে তার অসামান্য কাজের খবর পেয়ে সৌদি আরব তাকে আমন্ত্রণ জানায়।

পবিত্র কুরআনের এ পাণ্ডুলিপিটি তারা সংরক্ষণে দায়িত্ব নেয়। নাসিম আখতারের হাতে লেখা এ পাণ্ডুলিপিটি মসজিদে নববির কুরআর সংরক্ষণ মিউজিয়ামে সংরক্ষণ করা হয়।

মসজিদে নববির ৫নং গেট দিয়ে প্রবেশ করে বাম দিকে গেলেই চোখে পড়বে নাসিম আখতারের হাতে লেখা সুই-সুতোর বুননে পবিত্র কুরআনুল কারিমের তৈরি পাণ্ডুলিপিটি। আল্লাহ তাআলা নাসিক আখতারের এ কাজকে কবুল করুন। আমিন

মতামত দেওয়া বন্ধ আছে