জামায়াত নেতার মৃত্যুতে ছাত্রলীগের শোক!

জামায়াতে ইসলামীর কর্ম পরিষদ সদস্য মুমিনুল হক চৌধুরীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছে সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগ। সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে এলাকায় শোক প্রকাশ করে ব্যানার সাঁটানো হয়েছে। আব্দুল মান্নান নামে ছাত্রলীগের এক নেতা শোক প্রকাশ করে এসব ব্যানার সাঁটিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। একজন রাজাকারের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করায় ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছে ছাত্রলীগ।

চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল করিম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘মুমিনুল শুধু জামায়াত নেতা নয়, তিনি রাজাকার ছিলেন। তার মতো একজন রাজাকারের মৃত্যুতে যারা শোক প্রকাশ করেছেন, তারা ছাত্রলীগ হতে পারে না। তারা ছাত্রলীগ নামধারী সুবিধাভোগী।

এ ঘটনায় আমরা তীব্র নিন্দা জানাই। সেই সঙ্গে এই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিতে দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে অনুরোধ জানাচ্ছি।’

মুমিনুল সাতকানিয়া-লোহাগাড়া আসনের সংসদ সদস্য আবু রেজা মুহাম্মদ নেজাম উদ্দিন নদভীর শ্বশুর। শুক্রবার রাতে চট্টগ্রাম নগরীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

শনিবার বাদ জোহর চট্টগ্রাম কলেজ মাঠে (প্যারেড ময়দানে) তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগ ও জানাজায় অংশ নেওয়া নেতাকর্মীদের মাঝে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

ব্যানারে উল্লেখ করা হয়, সাতকানিয়া-লোহাগাড়ার সংসদ সদস্য প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজাম উদ্দিন নদভী এমপি মহোদয়ের শ্বশুর ও রিজিয়া রেজা চৌধুরীর শ্রদ্ধেহ পিতা আলহাজ মাওলানা মুমিনুল হক চৌধুরীর মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত। আমরা মরহুমের রুহের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।

ব্যানারের নিচের অংশে লেখা হয় শোকার্তে আব্দুল মান্নান, সভাপতি, সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগ।
একজন রাজাকারের মৃত্যুতে কেন শোক প্রকাশ করেছেন, জানতে চাইলে আব্দুল মান্নান বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। পাল্টা প্রশ্ন করে আব্দুল মান্নান জানতে চান, ব্যানারগুলো কি তার ফেসবুক প্রোফাইলে দেখা গেছে?

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পরে কল করবেন বলে কেটে দেন। এরপর একাধিকবার তার মোবাইলে কল করা হলে তিনি কল রিসিভ করেননি।
ব্যানারে আব্দুল মান্নান নিজেকে সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি দাবি করেছেন।

তবে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ নেতারা জানিয়েছেন, বর্তমানে সাতকানিয়ায় ছাত্রলীগের কোনও কমিটি নেই। কয়েক মাস আগে ওই উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে।

এ সম্পর্কে জানতে দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আবু তাহেরের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলে তিনি কল রিসিভ করেননি।
দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এমএম বোরহান উদ্দিন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সাতকানিয়ায় আপাতত ছাত্রলীগের কোনও কার্যক্রম নেই।

কয়েক মাস আগে ওই উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করা হয়। আব্দুল মান্নান ওই কমিটির সভাপতি ছিলেন। কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণার পর তার সঙ্গে আমাদের কোনও যোগাযোগ নেই।’

তিনি আরও বলেন, ‘জামায়াত নেতার মৃত্যুতে ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করে ব্যানার সাঁটানো হয়েছে, এমন একটি খবর আমিও শুনেছি। ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করে যারা এ ধরনের কাজ করেছেন, তাদের বিরুদ্ধে আমরা সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেবো।’

মতামত দেওয়া বন্ধ আছে