স্বাধীনতাকামী কাশ্মীরিদের জঙ্গি বলা যাবে না: বাবুনগরী

0

কোনো অবস্থাতেই স্বাধীনতাকামী কাশ্মীরি মুসলমানদের জঙ্গি বা সন্ত্রাসী বলা যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে শুক্রবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এ মন্তব্য করেন। বাবুনগরী বলেন, কোনো অবস্থায় কাশ্মীরের মুসলমানদের জঙ্গি বা সন্ত্রাসী বলা যাবে না।

স্বাধীনতাকামী কোনো মজলুম জাতি যদি স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করে, সেটি জঙ্গিবাদ বা সন্ত্রাসবাদ হয় না। উদাহরণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন, ১৯৫৬ সালের ১ জানুয়ারি সুদান ও ১৯৯৯ সালের আগস্ট মাসে পূর্ব তিমুরের জনগণ একটি গণভোটের মাধ্যমে ইন্দোনেশিয়া থেকে স্বাধীনতা লাভ করে। ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার সহকর্মীরা যুদ্ধ করে পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছেন।

হেফাজত মহাসচিব আরও বলেন, যদি স্বাধীনতাকামী যোদ্ধারা জঙ্গি হয়, তা হলে আমাদের বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধারাও জঙ্গি হয়ে যাবে। অথচ তারা আমাদের প্রাণপ্রিয় মুক্তিকামী মহাপুরুষ, তারা কোনো অবস্থায় জঙ্গি বা সন্ত্রাসী হতে পারে না। হজরত মুহম্মদ (সা.)-এর একটি হাদিসের সূত্র ধরে তিনি বলেন, ওই হাদিসে বর্ণিত হয়েছে- সমগ্র বিশ্ব মুসলিম এক দেহের বিভিন্ন অঙ্গের মতো। চোখে ব্যথা হলে পুরো শরীরে ব্যথা অনুভব হয়।

মাথায় আঘাত হলে পুরো শরীর জর্জরিত হয়। ‘সুতরাং এই সহি হাদিসের ভিত্তিতে কাশ্মীরের মজলুম স্বাধীনতাকামী মুসলমানদের জালিম মোদি সরকারের অমানবিক জুলুম, নির্যাতন থেকে রক্ষা করার জন্য এবং কাশ্মীরের স্বাধীনতা ফিরিয়ে আনার জন্য বিশ্বের সব মুসলমান, বিশেষত আরব বিশ্বকে শেষ রক্ত বিন্দু দিয়ে হলেও লড়াই চালিয়ে যেতে হবে।’

বাবুনগরী বলেন, জালিম মোদি সরকার কাশ্মীরের হাজার হাজার মুসলমানকে হত্যা করছে এবং তাদের জানমাল, ইজ্জত-আব্রু লুণ্ঠন করছে। তিনি আরও বলেন, কাশ্মীরের একেক বালিকণা ফরিয়াদ করছে আরব বিশ্বের কাছে, যেন আরব বিশ্বের নেতৃত্বে সব মুসলিম দেশ এই অমানবিক আচরণ এবং নিষ্পেষণ ও নির্যাতন থেকে তাদের রক্ষা করে।

এবং কাশ্মীরের মাটিতে স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করে।

কাশ্মীরের কারাগারে জায়গায় নেই” বন্ধীদের নেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্যে

গণগ্রেপ্তার অভিযানের ফলে জম্মু-কাশ্মীরের কারাগারে বন্দি রাখার জায়গা নেই। ফলে গ্রেপ্তারকৃতদের পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে ভারতের অন্য রাজ্যের কারাগারে।

বিশেষ মর্যাদা বাতিল ঘোষণার আগের দিন থেকে সেখানকার ৩০০ রাজনৈতিক নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে ভারত। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে রয়েছেন রাজ্যটির সাবেক দুই মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি এবং ওমর আবদুল্লাহও।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে ৩০ জনকে কাশ্মীর থেকে উত্তরপ্রদেশে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বিমানবাহিনীর বিশেষ বিমানে এসব বন্দিদের সেখানে পাঠানো হয়। আগ্রার কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হবে তাদের।

বিশেষ মর্যাদা বাতিলের প্রতিবাদে বিক্ষোভ দমন ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এমন পদক্ষেপ নিয়েছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। গ্রেপ্তারকৃত অনেকের বিরুদ্ধে নিরাপত্তা বাহিনীকে লক্ষ্য করে পাথর ছোড়ার অভিযোগ রয়েছে।

এক পুলিশ কর্মকর্তা সূত্রে সংবাদ সংস্থা এএনআই জানায়, গত কয়েকদিন ধরে জম্মু-কাশ্মীরজুড়ে গণগ্রেপ্তার অভিযান চলছে। তাতে বহু লোককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই ধরপাকড়ের ফলে সেখানকার জেলগুলোতে আর জায়গা নেই।

এর মধ্যে নির্দিষ্ট কিছু বন্দিদের অন্য রাজ্যের জেলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তারা জেলের মধ্যে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে পারে, এমন আশঙ্কায় কর্তৃপক্ষ এ পদক্ষেপ নিয়েছে বলে তিনি জানান।

সোমবার সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের মাধ্যমে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেওয়া হয়। এর মাধ্যমে অঞ্চলটি কার্যত পুরোপুরি দখলে নিয়ে নিল ভারত। ইতিহাসের সবচেয়ে কঠোর সামরিক পরিস্থিতি জারি করা হয়েছে সেখানে। মোবাইল নেটওয়ার্ক, ইন্টারনেট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

রাজ্যসভার এমন সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ফুঁসছে অঞ্চলটির জনগণ। কারফিউ ভেঙে এরই মধ্যে রাস্তায় নামা শুরু করেছে মানুষ। মঙ্গলবার রাতেই শ্রীনগরের বেশ কিছু জায়গা নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। ভারতীয় সেনাদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভকারীদের অন্ধ করে দেওয়ার ‘পেলেট গান’ ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে।

কাশ্মীরি নারীদের ভোগের কথা বলে বিকৃত যৌনকারীর পরিচয় দিল বিজেপির নেতা কর্মীরা
কাশ্মীরি নারীদের ভোগ করতে মরিয়া হয়ে উঠছে ভারতের বিকৃতমনা পুরুষরা অধিকৃত কাশ্মীরকে বিশেষ মর্যাদাদানকারী ৩৭০

ডেঙ্গুতে ঢাকায় মারা গেল লোহাগাড়ার মাহবুব আলম
লোহাগাড়াঃ ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে রাজধানী ঢাকার একটি হাসপাতালে মারা গেলেন চট্টগ্রামের লোহাগাড়ার বাসিন্দা আলহাজ্ব

সাতকানিয়ায় প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া গরীবের চাউল বিক্রি করে দিল তাঁতী লীগ নেতা
চট্টগ্রামঃ জেলার সাতকানিয়া ১নং চরতি ইউনিয়ন পরিষদে ঈদুল আজহা উপলক্ষে গরীব অসহায়দের জন্যে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া

নগরীর বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব ডাঃ রফিক আর নেই
চট্টগ্রামঃ নগরীর বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব ডাঃ রফিক আর নেই, ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন। আজ

সবাইকে ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানিয়েছে আরটিএমনিউজ২৪ডটকম
আরটিএমনিউজ২৪ডটকম: মহান রবের সন্তুষ্টি আর ত্যাগের মহিমায় উজ্জিবিত হওয়ার মাস জিলহজ। মুসলমানদের হজ আর কুরবানীর্।