শান্তি রক্ষায় এবার পাকিস্তানের ভূমিকার প্রশংসা করলেন ইইউ’র

আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠায় পাকিস্তানের প্রচেষ্টা ও ইতিবাচক ভূমিকার প্রশংসা করেছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) দূত ফেডেরিকা মোঘেরিনি।

সোমবার রাওয়ালপিণ্ডিতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সদর দপ্তরে সেনাপ্রধান জেনারেল কমর জাভেদ বাজওয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎকালে তিনি এই প্রশংসা করেন।

ইইউ’র পররাষ্ট্র ও নিরাপত্তা বিষয়ক নীতি সংশ্লিষ্ট সর্বোচ্চ প্রতিনিধি ও ইউরোপিয়ান কমিশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট মঘেরিনি বর্তমানে সরকারি সফরে পাকিস্তান রয়েছেন।

বৈঠকে পারস্পরিক স্বার্থ ও সার্বিক আঞ্চলিক পরিস্থিতি নিয়েও আলোচনা হয় বলে আইএসপিআরের এক বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।এর আগে একই দিন মঘেরিনির নেতৃত্বে ইইউ প্রতিনিধিদল ইসলামাবাদের পররাষ্ট্র দপ্তরে পাকিস্তানি কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করেন।

সেখানে দুই পক্ষের মধ্যে টেকসই অর্থনৈতিক উন্নয়নের লক্ষ্যে একটি কৌশলগত এনগেজমেন্ট পরিকল্পনা চূড়ান্ত করা হয়।এই পরিকল্পনায় বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও জ্বালানি খাতে অংশীদারিত্বের ওপর বিশেষ জোর দেয়া হয়েছে।

পরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশির সঙ্গে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে ইইউ’র পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান গণতান্ত্রিক স্থিতিশীলতার পথে পাকিস্তানের অগ্রগতি ও পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের নেতৃত্বাধীন সরকারের সংস্কার এজেন্ডাগুলোর প্রশংসা করেন।

নরেন্দ্র মোদি একজন হিংস্র ব্যক্তি: ইমরান খান

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে একজন হিংস্র ব্যক্তি বলে মন্তব্য করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।মঙ্গলবার ব্রিটিশ দৈনিক ফিনান্সিয়াল টাইমসকে দেয়া সাক্ষাৎকারে ইমরান খান এ কথা বলেন।

সাক্ষাৎকারে তিনি পুলওয়ামা হামলাসহ বিভিন্ন ইস্যুতে কথা বলেন। খবর জিও নিউজ ও এক্সপ্রেস নিউজের। ইমরান খান বলেন, ভারত যুদ্ধ নেশায় মত্ত। লোকসভা নির্বাচনের আগ মুহূর্তে আমি এখনো যেকোনো পরিস্থিতির আশঙ্কা করছি।

ফের তারা কোনো উসকানি দিতে পারে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি একজন হিংস্র ব্যক্তি। তিনি উভয় দেশকে যুদ্ধক্ষেত্রে নিয়ে এসেছিলেন।

পুলওয়ামার ঘটনাকে ব্যবহার করে মোদি সরকার যুদ্ধ পরিস্থিতি সৃষ্টির চেষ্টা করেছিল অভিযোগ করে ইমরান বলেন, পুলওয়ামার হামলা মোদির মুসলিম বিরোধী মনোভাব এবং কাশ্মীর বিষয়ে তাদের কঠোর পলিসির অবধারিত ফল।

জঙ্গি সংগঠন জইশে মোহাম্মদের সঙ্গে পাকিস্তানের কোনো ধরনের সম্পর্ক নেই বলে দাবি করে পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, জঙ্গিসংগঠনগুলোর বিরুদ্ধে অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে পাকিস্তান এখন কঠোর অবস্থানে রয়েছে।

নয়া পাকিস্তানে জঙ্গিদের কোনো ঠাঁই হবে না। পাকিস্তানে জঙ্গিদের নির্মূলে ক্রেকডাউন চলছে। জঙ্গি দমনে এখন আমরা যত পদক্ষেপ নিয়েছি, অতীতের কোনো সময় এমন হয়নি।

ব্রিটিশ দৈনিককে দেয়া সাক্ষাৎকারে ইমরান খান পাকিস্তানের অর্থনৈতিক বিষয়েও মন্তব্য করেন। ইমরান বলেন, দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করতে আমরা বদ্ধপরিকর। চীন সবসময় পাকিস্তানকে সহযোগীতা করছে। এ জন্য আমরা তাদের ধন্যবাদ জানাই, তবে পাকিস্তান চীনের ক্লায়েন্ট হয়ে গেছে এ ধারণা ঠিক নয়।

আরো সংবাদ পরতে পারেন

মতামত দেওয়া বন্ধ আছে