‘আফগানিস্তানে চূড়ান্তভাবে পরাজিত হতে চলেছে আমেরিকা’

তালেবানের প্রধান আলোচক শের মোহাম্মদ আব্বাস স্তানেকেজাই বলেছেন, চূড়ান্তভাবে পরাজিত হতে চলেছে আমেরিকা এবং শিগগিরই তারা আফগানিস্তান ছাড়তে বাধ্য হবে। আন্তর্জাতিক একটি সংবাদ মাধ্যমে এ খবর প্রকাশিত হয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, কাতারের দোহায় গত মাসের ২৮ তারিখে এক অভ্যন্তরীণ সমাবেশে এ কথা বলেছেন তিনি। তিনি আরও বলেন, আমেরিকা হয় নিজে থেকে আফগানিস্তান ছাড়বে নয় তো তাকে আফগানিস্তান থেকে পাততাড়ি গুটাতে বাধ্য করা হবে।

স্তানেকেজাই’র নেতৃত্বাধীন আলোচকরা মার্কিনীদের সঙ্গে আলোচনায় বসার মাত্র দু’দিন আগে এ মন্তব্য করেন তিনি। তালেবানপন্থি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার এ বক্তব্যের ভিডিও গত শুক্রবার প্রকাশিত হয়েছে।

অতীতে ব্রিটিশ এবং অধুনালুপ্ত সোভিয়েত আগ্রাসনের মোকাবেলায় আফগান জাতির বীরত্বের প্রশংসা করেন তিনি। পাশাপাশি আফগানিস্তানে চলমান বিদেশি সামরিক উপস্থিতির মোকাবেলায় আফগান জাতির বীরত্বপূর্ণ ভূমিকারও প্রশংসা করেন তিনি।

তিনি বলেন, গত শতাব্দিতে দুই পরাশক্তিকে পরাজিত করতে আল্লাহ আফগান জাতিকে সহায়তা করেছে। বর্তমানে তৃতীয় পরাশক্তির মোকাবেলা করছে আফগান জনগণ এবং এটিও চূড়ান্তভাবে পরাজিত হতে চলেছে।

আরো পড়ুন

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে উত্তেজনা থাকলেও যুদ্ধ হবে না: আয়াতুল্লাহ খামেনি

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আল খামেনি যুক্তরাষ্ট্র ও তার দেশের মধ্যে যুদ্ধের আশঙ্কা নাকচ করে দিয়ে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তার দেশের উত্তেজনা আছে। তবে উত্তেজনা থাকলেও যুদ্ধ হবে না।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ইরানের প্রেসিডেন্ট, পার্লামেন্ট স্পিকার, বিচার বিভাগের প্রধান, তিন বাহিনীর প্রধান, বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর প্রধান, সংসদ সদস্যসহ রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনের নীতিনির্ধারণী কর্মকর্তাদের এক সমাবেশে ভাষণ দিতে গিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

খবর তেহরান টাইমসের। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা বলেন, আমেরিকার সঙ্গে ইরানের যে সংঘাত তা সামরিক পর্যায়ে যাবে না। আসলে এখানে যুদ্ধের কোনো সম্ভাবনাই নেই। তিনি বলেন, আমেরিকা যদি কোনো ধরনের সংঘাতে যায়, তবে সেই সংঘাত মোকাবেলায় ইরানি জনগণ প্রতিরোধ গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

আর এই সংঘাতে শেষ পর্যন্ত আমেরিকা পিছু হটতে বাধ্য হবে। দুই দেশের মধ্যে চলমান উত্তেজনাকে ‘আকাঙ্ক্ষার সংঘাত’ উল্লেখ করে ইরানের সর্বোচ্চ নেতা বলেন, দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা রয়েছে। তবে এ উত্তেজনায় কোনো যুদ্ধের জন্য নয়।

আর যদি কোনো যুদ্ধ বাধেও তবে শেষ পর্যন্ত ইরান বিজয়ীর বেশে উন্নত শির নিয়ে বেরিয়ে আসবে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আলোচনা প্রস্তাবের বিষয়ে তিনি বলেন, আমেরিকায় এখন যে সরকার ক্ষমতায় আছে তার সঙ্গে আলোচনায় বসা বিষপানের সমতুল্য।

তারা চায় আমরা আমাদের ক্ষেপণাস্ত্রের পাল্লা কমিয়ে ফেলি। আর এর পর তারা আমাদের ওপর হামলা করলে আমরা যাতে তাদের পাল্টা জবাব দিতে না পারি। কেউ বোকার স্বর্গে বাস করলে নিজের শক্তিমত্তার উৎস নিয়ে এমন আলোচনায় বসে, বলেন তিনি।

আরো সংবাদ পরতে পারেন

মতামত দেওয়া বন্ধ আছে