হিজাব নিষিদ্ধের প্রতিবাদে সংসদে স্কার্ফ পরে চ্যালেন্স করলেন অস্ট্রিয়ান নারী এমপি মারথা !

অস্ট্রিয়ায় হিজাব ও স্কার্ফ ব্যবহার নিষিদ্ধ করার বিরুদ্ধে সংসদে মাথায় স্কার্ফ পরে প্রতিবাদ জনিয়েছেন মারথা বিসম্যান নামে দেশটির একজন নারী এমপি।

শুক্রবার মারথা বিসম্যান নামে ওই স্বতন্ত্র ওই নারী এমপি সংসদে বক্তৃতা দেওয়ার সময় স্কার্ফ পরে প্রতিবাদ করেন। বৃহস্পতিবার অস্ট্রিয়ার সরকার দেশটির প্রাইমারি স্কুলের মেয়েদের জন্য স্কার্ফ নিষিদ্ধ করে বিল পাস করে।

এর আগে দেশটি নারীদের হিজাব পরার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। হিজাব নিষিদ্ধের প্রতিবাদে সংসদে হিজাব পরার পর মারথা বিসম্যান বলেন, আমাদের উচিত হবে না আমাদের মধ্যে কোনো বাধা সৃষ্টি করা।

অস্ট্রিয়ার সংসদে স্কার্ফ নিষিদ্ধ করার বিষয়ে বিলটির পক্ষে ভোট দেন ক্ষমতাসীন মধ্য ডানপন্থী দল পিপলস পার্টি এবং উগ্র ডানপন্থী ফ্রিডম পার্টির সব সদস্য। তবে বিরোধীদলের প্রায় সব সদস্যই এর বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন।

এর আগে ২০১৭ সালের মে মাসে মুসলিম নারীদের বোরকা ও নিকাব নিষিদ্ধ করে আইন পাস করে অস্ট্রিয়ার সরকার।

বোরকা ও নিকাবের পর স্কার্ফ নিষিদ্ধ হওয়ায় মুসলমানরা হতাশা প্রাকশ করেছেন। অস্ট্রিয়ায় প্রায় সাত লাখ মুসলমানের বসবাস রয়েছে।

আরো পড়ুন:

ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানে হামলার জন্য অামেরিকাকে ইরাকে ভূখণ্ড ব্যবহার করতে দেয়া হবে না!

রাশিয়ায় নিযুক্ত ইরাকের রাষ্ট্রদূত হায়দার মানসুর হাদি বলেছেন, ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের বিরুদ্ধে হামলার জন্য আমেরিকাকে তার দেশের ভূখণ্ডকে ব্যবহার করতে দেয়া হবে না। তেহরান এবং ওয়াশিংটনের মধ্যে যখন মারাত্মক সামরিক উত্তেজনা বিরাজ করছে তখন ইরাকি রাষ্ট্রদূত এ কথা বললেন।

গতকাল (বুধবার) মস্কোয় এক সংবাদ সম্মেলনে ইরাকি রাষ্ট্রদূত বলেন, “মধ্যপ্রাচ্যে আর কোনো ধ্বংসাত্মক যুদ্ধ দেখতে চায় না ইরাক। ইরাক একটি স্বাধীন-সার্বভৌম দেশ। আমরা আমাদের ভূখণ্ড আমেরিকাকে ব্যবহার করতে দেব না।”

ইরাকের প্রধানমন্ত্রী আদিল আবদুল-মাহদি এর আগে ইরাকের প্রধানমন্ত্রী আদিল আবদুল-মাহদিও একই কথা বলেছেন। তিনি আরো বলেছেন, ইরান ও আমেরিকার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ককে ব্যবহার করে ইরাক দুপক্ষের মধ্যে উত্তেজনা কমানোর ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে পারে। তিনি জোর দিয়ে বলেন, “ইরাক পরিষ্কার করে দিয়েছে যে, আমরা সমাধানের অংশ হব, সংকটের অংশ হব না।”

আমেরিকা সাম্প্রতিক দিনগুলোতে ইরানের কথিত হুমকি মোকাবেলার জন্য মধ্যপ্রাচ্যে বিশেষ করে পারস্য উপসাগরে যুদ্ধজাহাজ ও বি-৫২ বোমারু বিমান মোতায়েন করেছে। শুধু তাই নয় ইরাকে মার্কিন দূতাবাস ও কন্স্যুলেট ভবন থেকে জরুরি নয় -এমন লোকজনক দ্রুত দেশে ফিরিয়ে নিচ্ছে।

আরো সংবাদ পরতে পারেন

মতামত দেওয়া বন্ধ আছে