তুরস্কে বাচ্ছাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যেন একটি জান্নাতি ফুলের বাগান

সুলতান এরদোগানের দেশ তুরস্কে জেনারেল শিক্ষার পাশাপাশি কুরআন হাদিস শিক্ষার এক অন্যান্য নজীর গড়লো তুরস্ক, শিশুদের জন্য প্রতিষ্ঠান গুলাকে এত সুন্দরর করে সাজানো হয়েছে,যেন একটি জান্নাতি ফুলের বাগান,আর সেই ফুলের বাগানের মালি হচ্ছেন শিক্ষকরা,

শিশুদে প্রথম জীবন শুরু করতে পারে আল্লাহর বিধান শিখে সেই ব্যবস্থা জন্য,বাচ্ছাদের মসজিদ মুখি করার জন্য বিভিন্ন রকম কৌশল অবলম্বন করে থাকে, কুরআন হাদিস শিখার জন্য বাচ্ছাদের জন্য বিভিন্ন পুরষ্কার আয়োজন করে থাকে সে দেশের সরকার,

বিশ্বে প্রথম সুঁই-সুতোয় কুরআন তৈরি করলেন পাকিস্তানি নারী নাসিম আখতার!

বিশ্বে প্রথম সুঁই-সুতোয় তৈরি হলো কুরআন- সুই-সুতোর বুননে বিশ্বের প্রথম হাতে সেলাই করা কুরআনের পাণ্ডুলিপি সম্পন্ন করেছেন পাকিস্তানি নারী নাসিম আখতার। ৩২ বছরের নিরলস চেষ্টায় তিনি এ পাণ্ডুলিপিটি তৈরি সমাপ্ত করেন। অনেক মানুষই ইসলামের জন্য কিছু করতে চান।

ইসলামের প্রতি একান্ত ভালোবাসাই মানুষ অনেক কঠিন কাজ বাস্তবে রূপ দেন। এমনই একটি দুঃসাহসিক কাজ হাতে সেলাই করা কুরআনের পাণ্ডুলিপি। ৩২ বছরের নিরলস প্রচেষ্টায় নসিম আখতার বিশ্বের প্রথম হাতে লিখিত কুরআনের পাণ্ডুলিপিটি তৈরি করেছেন।

ইসলামের জন্য তাঁর প্রচেষ্টা ও ভালবাসায় আজ তিনি বিশ্ব মুসলিমের সামনে সম্মানের আসনে আসীন। নিঃসন্দেহে এটি একটি চমৎকার পরিবেশন। হাতে সেলাই করা এ কুরআনের ওজন ৬০ কেজি। এটি তুলা দিয়ে তৈরি। সোনালী রংয়ের কারুকাজ করে প্রতিটি পৃষ্ঠাকে সুসজ্জিত করা হয়েছে।

কাভারে সিল্কের সুতা দ্বারা সুন্দরভাবে সজ্জিত করা হয়েছে। নাসিম আখতার যখন এই কাজ শুরু করেন তখন তিনি কম বয়সী ছিলেন। ৩২ বছরের অক্লান্ত পরিশ্রমে সুই-সুতোয় কুরআনের পাণ্ডুলিপি তৈরি করে তিনি তার স্বপ্নের বাস্তবায়ন করেন।

কুরআনের অসামান্য পাণ্ডুলিপিটি সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে পেরে সে এক বিশাল মাইল ফলক অর্জন করেছেন। আর এ কাজে তিনি শান্তি ও স্বস্তি বোধ করেন। নাসিম আখতারকে তার অসামান্য কাজের খবর পেয়ে সৌদি আরব তাকে আমন্ত্রণ জানায়।

পবিত্র কুরআনের এ পাণ্ডুলিপিটি তারা সংরক্ষণে দায়িত্ব নেয়। নাসিম আখতারের হাতে লেখা এ পাণ্ডুলিপিটি মসজিদে নববির কুরআর সংরক্ষণ মিউজিয়ামে সংরক্ষণ করা হয়।

মসজিদে নববির ৫নং গেট দিয়ে প্রবেশ করে বাম দিকে গেলেই চোখে পড়বে নাসিম আখতারের হাতে লেখা সুই-সুতোর বুননে পবিত্র কুরআনুল কারিমের তৈরি পাণ্ডুলিপিটি। আল্লাহ তাআলা নাসিক আখতারের এ কাজকে কবুল করুন। আমিন

আরো পড়ুন

বিমানবন্দর থেকেই ব্রিটিশ গায়িকাকে ফেরত পাঠাল ইরান

বিমানবন্দর থেকেই এক ব্রিটিশ গায়িকাকে ফেরত পাঠিয়েছে ইরান।
জোস স্টোন নামের ওই ব্রিটিশ গায়িকা দাবি করেছেন, ইরান সরকার তাকে দেশটিতে প্রবেশ করতে না দিয়ে ফেরত পাঠিয়েছে। পাশাপাশি ইরানের বিমানবন্দরে আটকে রাখার অভিযোগও করেছেন তিনি।

খবর দ্য টেলিগ্রাফের।
বৃহস্পতিবার ইনস্টাগ্রামে দেয়া এক পোস্টে ব্রিটিশ গায়িকা জোস স্টোন জানান, বিশ্ব ভ্রমণের অংশ হিসেবে অন্যান্য দেশের মতোই তিনি ইরান গিয়েছিলেন। তবে দেশটিতে অবস্থানকালে তিনি প্রকাশ্য স্থানে কনসার্ট আয়োজন করতে পারেন; এমন আশংকায় বিমানবন্দরে তাকে আটকে দেয়া হয়।

গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত ব্রিটিশ এ গায়িকার দাবি, তিনি জানতেন যে ইরানে নারীদের একক কনসার্টের অনুমতি দেয়া হয় না। তিনি শুধু দেশটি ঘুরে দেখতে চেয়েছিলেন।
৩ জুলাই ইনস্টাগ্রামে একটি ভিডিও পোস্ট করেন জোস স্টোন। মাথায় সাদা স্কার্ফ পরিহিত ওই ভিডিওতে তিনি বলেন, আমি ইরানে গিয়েছিলাম, সেখানে আমাকে আটক করা হলে আমি ফিরে আসি।

তবে জোস স্টোনকে বিমানবন্দরে আটকে রাখার বিষয়টি অস্বীকার করেছে ইরান। পুলিশকে উদ্ধৃত করে ইরানের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইরনা জানিয়েছে, তার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র এবং এন্ট্রি পারমিট ছিল না।
৩২ বছর বয়সী ওই গায়িকা ইরানে কীপরিকল্পনায় গিয়েছিলেন তা স্পষ্টছিল না বলেও জানায় দেশটির পুলিশ।

বিশ্ব ভ্রমণের অংশ হিসেবে ২০১৪ সাল থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ঘুরে বেড়াচ্ছেন জোস স্টোন। প্রতিটি দেশেই স্থানীয় শিল্পীদের সঙ্গে নানা আয়োজনে অংশ নেন তিনি।

মতামত দেওয়া বন্ধ আছে