সন্ত্রাসী হা’মলার পরিকল্পনার, ভারতীয় দুই গুপ্তচর আটক করলো পাকিস্তান

0

পাকিস্তানে স’ন্ত্রাসী হা’মলার পরিকল্পনার অভিযোগে ২ ভারতীয়কে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল দেশটির পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশ থেকে ওই দুই ব্যক্তিকে আটক করা হয়। পাকিস্তানের পুলিশের ধারণা, ‘জেমস বন্ড’ স্টাইলে কোনো স’ন্ত্রাসী হা’মলা পরিচালনার উদ্দেশ্যেই ভারত তাদের পাকিস্তানে পাঠিয়েছে। খবর স্পুতনিক নিউজ এর।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় ঐ সংবাদমাধ্যম আরও জানায়, ভারতের ওই দুই নাগরিক অবৈধভাবে পাকিস্তানে প্রবেশ করেন। তারা হলেন ভারতের মধ্যপ্রদেশ রাজ্যের প্রশান্ত ও তেলেঙ্গানা রাজ্যের দারিলাল। এদের মধ্যে একজন সফটঅয়্যার ইঞ্জিনিয়ার। এদিকে, আটক ঐ দুই ব্যক্তিকে নিয়ে পাকিস্তান যে সব তথ্য দিয়েছে, সে বিষয়ে ভারতের পক্ষ থেকে এখনো কোনও মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, এর আগে সেপ্টেম্বর মাসে তোরখাম সীমান্তঅঞ্চল থেকে পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা ওমর দাউদ নামে আরেক ভারতীয় গুপ্তচরকে আটক করে। এ ঘটনার একদিন আগে রবিবারই (১৭ সেপ্টেম্বর) ‘স’ন্ত্রাস রফতানির’ অভিযোগ তুলে নয়াদিল্লি ও ইসলামাবাদ একে ওপরকে গালমন্দ করে। এছাড়া কাশ্মীর ইস্যুতে দু’দেশের মধ্যকার সম্পর্ক তলানিতে ঠেকেছে।

আরো সংবাদ

ইতালির নারী মনোবিজ্ঞানী যেভাবে ইসলাম গ্রহণ করলেন !

যুগ যুগ ধরে ইসলামের সোনালী আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে ইসলামের সুশীতল ছায়াতলে আশ্রয় গ্রহণ করেছেন অগণিত মানুষ। ধনী-গরিব, উঁচু-নিচু, শিক্ষিত কিংবা অক্ষরজ্ঞানহীন কেউ বাদ যায়নি এ তালিকা থেকে।

ইতালির রোমের অধিবাসী নারী মনোবিজ্ঞানী রোক্সানা ইলিনা নেগ্রা। ইরানের মাশহাদ শহরের বিখ্যাত সাধক ইমাম রাজার সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে তিনি ইসলাম গ্রহণ করেন।

ইসলাম গ্রহণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মনোবিজ্ঞান বিষয়ে ব্যাপক গবেষণা ও নবি-রাসুলদের জীবনাচার পড়েই ইসলামের সুমহান আদর্শে অনুপ্রাণিত হতে থাকেন।পবিত্র কুরআন অধ্যয়ন করে ইসলামের আলোকিত জীবনে নিজেকে সাজাতে উদ্বুদ্ধ হন।

আর তাতেই পেয়ে যান ইসলামের সুমহান সত্যের দাওয়াত। রোক্সানা ইলিম নেগ্রার ভাষায়, ‘আমি মনোবিজ্ঞানের ছাত্র। আমি সব সময় শান্তির জন্য, সৃষ্টিকর্তার সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার জন্য এবং অসুস্থতা থেকে নিরাময়ের উপায় খুঁজে বের করার চেষ্টা ও গবেষণা করেছি। সব কিছু সুন্দর সমাধানে ইসলামকেই সবচেয়ে বেশি গ্রহণযোগ্য হিসেবে পেয়েছি।

ইসলামেই রয়েছে সব কিছুর সঠিক সমাধান।’ তিনি আরো বলেন, ‘ইসলামের প্রধান ইবাদত ‘নামাজ’ অনুশীলন দুনিয়াতে প্রশান্তি লাভের অন্যতম সেরা মাধ্যম। যা মানুষ আল্লাহর ইবাদতের মাধ্যমে লাভ করে থাকে। নামাজের অনুশীলন পদ্ধতিও তাকে ইসলাম গ্রহণে আরো বেশি উদ্বুদ্ধ করে।

ইসলামের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গবেষণা করতে করতে তিনি এ কথা বুঝতে সক্ষম হন যে, ইসলামই একমাত্র পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা। শান্তি ও নিরাপত্তায় পরিপূর্ণ সত্য ও সঠিক জীবনাচার। ইসলাম গ্রহণ করে যা বললেন ১২ নারী গত কিছুদিন আগে সৌদির আরবের গুরুত্বপূর্ণ শহর জেদ্দা।

জেদ্দার মাওলানা হিফজুর সোহারভি একাডেমিতে বিভিন্ন দেশের ১২ জন ইসলাম গ্রহণ করে। সেখানে তারা তাদের ইসলাম গ্রহণের বিষয়ে অনুভূতি প্রকাশ করে।ইসলাম গ্রহণকারী এ নতুন মুসলিম নারীদের জন্য জেদ্দার মাওলানা হিফজুর রহমান সোহারভি একাডেমি এক সুন্দর অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

যেখানে তারা নিজেদের কথাগুলো প্রকাশ করেন। খবর সৌদি গেজেট। ইন্ডিয়া, ব্রিটেন, ফিলিপাইন এবং শ্রীলংকা থেকে পবিত্র নগরী সৌদি আরবে আসেন।ইসলাম গ্রহণকারী নারীরা জানান, শান্তি ও নিরাপত্তার জীবন ব্যবস্থা ইসলাম গ্রহণে তাদের অনেক প্রতিবন্ধকতাকে জয় করতে হয়েছে।

অনেক বাধা অতিক্রম করতে হয়েছে। এদের মধ্যে দন্তচিকিৎসক ইমান একজন। তিনি অন্ধকার থেকে আলোর পথে ফিরে আসতে তাকে অনেক বাধা অতিক্রম করতে হয়েছিল। ইসলাম গ্রহণের আগে তিনি খ্রিস্টান ধর্মে বিশ্বাসী ছিলেন।

শুধু তাই নয়, ইসলাম গ্রহণের আগে তিনি তার শহর পল্লীতে একটি গির্জাও নির্মাণ করেন।জীবনের কোথায় যেন তার অপূর্ণতা রয়েছে। সে অপূর্ণতা থেকেই তিনি ইসলামের শান্তি নিরাপত্তা চাদরে নিজেকে আবৃত করে নেন। ইসলাম গ্রহণ আরেক নারীর নাম আয়শা।

তার জন্য পবিত্র কুরআনুল কারিমের তেলাওয়াত ছিল রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতা। সে অভিজ্ঞতার বর্ণনা প্রচণ্ড আবেগে তিনি ভাষায় প্রকাশ করতে পারেননি।তবে তিনি জানান, সর্ব প্রথম তিনি সুরা ফাতেহা তেলাওয়াত করেছিলেন।

যাতে হৃৎস্পন্দন বেড়ে যায়।দীর্ঘ দিন আগে (২০০১) ইসলাম গ্রহণকারী নারী এলিনা। ইসলাম গ্রহণের আগে তিনি ক্যাথলিক ছিলেন। তার সহকর্মীরা তাকে ইসলাম সম্পকে জানার জন্য গাইড দিয়েছিলেন। ইসলামের বিষয়ে পড়াশোনায় তাকে অনেক বই সরবরাহ করেছিল।

অনেক ইসলামি বইয়ের ইংরেজি অনুবাদ পড়ার পাশাপাশি কুরআনের ইংলিশ ভার্ষণে পড়াশোনায় তাকে ইসলামের দিকে ধাবিত করে। এসব বই ও কুরআন পড়ে তিনি নিশ্চিত হয়েছিলেন যে, ইসলাম শান্তি ও নিরাপত্তা অনন্য জীবন ব্যবস্থা।ফাতেমা জয় নামে আরেক নারী ইসলাম গ্রহণ করায় অনেক বিড়ম্বনার শিকার হয়েছেন।

তিনি অনেক দৃঢ়তা ও সাহসিকতা দিয়ে সেসব সমস্যার মোকাবেলা করেছেন। ঈমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। যা মহান আল্লাহর একান্ত রহমত ও সাহায্য ছাড়া সম্ভব হতো না বলেও জানান তিনি। জেদ্দার এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উম্মে হুদাইফা। তার ইসলাম গ্রহণও ছিল বিশেষ বিষয়।

কারণ তিনি ইসলাম গ্রহণের আগে বৌদ্ধ ও হিন্দু ধর্মের ওপর পড়া শোনা করেছেন। কোনো ধর্মই তাকে শান্তি দিতে পারেনি। সন্তুষ্ট করতে পারেনি তাকে।উম্মে হুদাইফা যখন ইসলমি বই ও সাহিত্যের দিকে নজর দেন, তখনই তিনি ইসলামের প্রতি দুর্বল হয়ে যায়।

আর ইসলামের পেয়ে যান জীবনের সফলতার মূলমন্ত্র ও দুনিয়ার পরকালের যুক্তিযুক্ত সিদ্ধান্ত ফয়সালা।