মিনি কম্পিউটার তৈরি করেছে নেত্রকোণার মাদরাসা ছাত্র হাদি

নিজের অদম্য ইচ্ছে শক্তি ও বাবার অনুপ্রেরণায় মিনি কম্পিউটার তৈরি করেছে নেত্রকোণার মদন উপজেলার মাদরাসা ছাত্র কামরুজ্জামান আল হাদি।

হাদি মদন উপজেলার জাহাঙ্গীরপুর ফাজিল মাদ্রাসার দশম শ্রেণির ছাত্র। তার বাবার নাম মাওলানা সাইদুর রহমান।
জানা যায়, বাসার কম্পিউটারে কোনো ত্রুটি দেখা দিলে সে নিজেই তা মেরামত করত। আর এ থেকেই একদিন তার মাথায় আসে কম্পিউটার তৈরির চিন্তা।

প্রাথমিকভাবে মোবাইলের মনিটর ব্যবহার করে, টিন দিয়ে সিপিইউর বক্স তৈরি করে ও তাতে মোবাইলের মাদারবোর্ড ব্যবহার করে সিপিইউর পূর্ণাঙ্গ সেটাপ সম্পন্ন করে হাদি। হাতে লিখা অক্ষর প্রতিস্থাপন করে তৈরি করে কী-বোর্ড। সিডির চাকা ও টিনের আবরণের মধ্যে তার সংযুক্ত করে মাউস তৈরি করে।

এরপর সিপিইউ থেকে একটি সাউন্ডবক্সে সংযোগ দেয়া হয়। মোবাইলের বেটারির মাধ্যমেই চলে তার এ মিনি কম্পিউটারের অডিও, ভিডিও,এমএস ওয়ার্ড ও ইন্টারনেট প্রোগ্রাম। ছোট আকারের এ কম্পিউটার তৈরিতে তার খরচ হয়েছে ২০০০ টাকা। গত ৬ মাস ধরে চিন্তার ফসল হলো তার এ কম্পিউটার।

বতর্মান সরকারের ডিজিটাল ব্যবস্থাপনা কম খরচে সবার ঘরে ঘরে পৌঁছে দেয়াই হাদির ইচ্ছা। যাতে করে সব শিক্ষার্থী সহজেই কম্পিউটার ব্যবহার করতে পারে।

তার বাবা পেশায় শিক্ষক ও মা গৃহিণী। ৪ ভাই ৫ বোনের মধ্যে হাদি চতুর্থ। হাদির বাবা মাওলানা সাইদুর রহমানের জানান, প্রথমে তারা বিরক্ত হলেও পরে ছেলের অদম্য ইচ্ছার প্রতি সমর্থন জানিয়ে তার যাবতীয় খরচ বহন করেন।
এ ব্যাপারে হাদির শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ মো. মঞ্জুরুল হক খান বলেন, উপজেলা থেকে জেলাপর্যায়ে বিজ্ঞান মেলায় অংশগ্রহণ করে হাদি আমাদের সুনাম কুড়িয়ে এনেছে।

এ বিষয়ে মদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ওয়ালিউল হাসান তার মিনি কম্পিউটার তৈরির বিষয়ে অবগত আছেন জানিয়ে বলেন, আমরাই তাকে উপজেলা থেকে জেলাপর্যায়ে পাঠানোর ব্যবস্থা করি। তার পৃষ্ঠপোষকতা দরকার বলে তিনি মনে করেন।

আরো সংবাদ পরতে পারেন

মতামত দেওয়া বন্ধ আছে