ছোটবেলায় মা হারানো সেই আফিফের ব্যাটে আজ বাংলাদেশের জয়ের হাসি

0

টি-টুয়েন্টি ক্যারিয়ারে নিজের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে নেমেই ম্যাচ জয়ী ইনিংস খেললেন উনিশের তরুণ আফিফ হোসেন। ২৪ বলে তার হাফসেঞ্চুরির ইনিংস জানিয়ে দিলো জাতীয় দলে তিনি অনেকদিন খেলার জন্যই এসেছে। আসুন জেনে নেয়া যাক কে এই আফিফ?

আফিফের মা নেই। একদম ছোটবেলায়, যখন মুখে কথাও ফোটেনি, তখন মাকে হারিয়েছেন তিনি। খুলনার ছেলেটি বড় হয়েছে ঢাকায়, খালার কাছে। বাবা জাহাঙ্গীর হোসেন কখনও ছেলের ক্রিকেটার হওয়ার স্বপ্নে বাধা হয়ে দাঁড়াননি। ২০১০ সালে বিকেএসপিতে সপ্তম শ্রেণিতে আফিফকে ভর্তি করিয়ে দেন বাবা।

বাংলাদেশের একমাত্র ক্রীড়া শিক্ষা কেন্দ্রই ক্রিকেটের ভিত গড়ে দিয়েছে তার। বয়সভিত্তিক ক্রিকেটের পরিচিত মুখ আফিফ পাদপ্রদীপের আলোয় আসেন বিসিবি অনূর্ধ্ব-১৭ দলের হয়ে ভারতের সিএবি দলের বিপক্ষে চার ম্যাচের সিরিজে চারটি হাফসেঞ্চুরি করে। বিপিএলেও দারুণ পারফরম্যান্স আফিফের। ২০১৬ সালে বিপিএলে অভিষেক ম্যাচেই ৫ উইকেট নিয়ে হৈচৈ ফেলে দিয়েছিলেন তিনি।

উল্লেখ্য, ত্রিদেশীয় টি-টুয়েন্টি সিরিজের গতকাল (শুক্রবার) প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে। ১৮ ওভার খেলে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৪৪ রান সংগ্রহ করে জিম্বাবুয়ে। ফলে জিতার জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ১৪৫ রান। জবাবে, ব্যাটিংয়ে এসে ১৭.৪ ওভার খেলে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৪৮ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। ফলে ৩ উইকেটে জিম্বাবুয়েকে হারায় বাংলাদেশ।

আরো সংবাদ

আফিফ-সৈকতের ব্যাটে টাইগারদের অবিশ্বাস্য জয়

আফিফ হোসেন ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের দুরন্ত ব্যাটে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেঅবিশ্বাস্য জয় পেয়েছে বাংলাদেশ।

৯.৩ ওভারে ৬০ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে চরম বিপর্যয়ে পড়ে প্রায় হেরেই গিয়েছিল টাইগাররা। তবে সপ্তম উইকেট জুটিতে তাদের অনবদ্য ব্যাটিংয়ে ২ বল হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় টাইগাররা।

তিন উইকেটে জয় নিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজে শুভ সূচনা করে বাংলাদেশ।

এর আগেজিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১৪৫ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে দলীয় ৪.৩ ওভারে মাত্র ২৯ রানে লিটন দাস-সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হাসানের উইকেট হারিয়ে চরম বিপদে পড়ে টাইগাররা।

এরপর ২৭ রানের ব্যবধানে ফেরেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে রায়ান বার্লের দুর্দান্ত ক্যাচে পরিণত হয়ে সাজঘরে ফেরেন সাব্বির রহমান রুম্মন। তার বিদায়ে ৯.৩ ওভারে ৬০ রানে ৬ উইকেট হারায় বাংলাদেশ।

এর আগে শুক্রবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বৃষ্টির কারণে মাঠ ভেজা থাকায় নির্ধারিত সময়ের সোয়া এক ঘণ্টা পর খেলা শুরু হয়। বিলম্বে খেলা শুরু হওয়ায় ২০ ওভারের পরিবর্তে খেলা নির্ধারিত হয় ১৮ ওভারে