কাশ্মীরের স্বাধীনতা চাওয়া শতভাগ যৌক্তিক: ফারুক হাসান

0

যারা বলতেছেন কাশ্মীরে ভারতের বর্বর আগ্রাসন তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়, তাদের কাছে পরিষ্কার ব্যখ্যা আশা করছি। ভারত কাশ্মীরীদের উপর যে কলঙ্কজনক বর্বর আগ্রাসন চালাচ্ছেন তা কোনভাবেই ভারতীয় অভ্যন্তরীণ বিষয় হতে পারে না।

কারণ, প্রাচীনকাল থেকেই পৃথিবীর ভূস্বর্গ কাশ্মীর ছিল সম্পূর্ণ স্বাধীন একটি অঞ্চল। তাদের নিজেস্ব পতাকা, কোর্ট কাচারি থেকে শুরুকরে সবই ছিল। বিশ্বের কোটি কোটি মানুষের কাছে সুখ আর শান্তির এক সমারোহের মিলনস্থল ছিল কাশ্মীর।

আজ থেকে ৭০ বছর আগে যখন ভারতীয় ইউনিয়নের সাথে যুক্ত হওয়ার জন্য কাশ্মীরকে বলা হলো তখন বিভিন্ন সমীকরণের বাটে পরে তারা (বলতে গেলে বাধ্য হয়েই যুক্ত হয়) বাধ্য হয় ভারতীয় ইউনিয়নে যুক্ত হতে।

কিন্তু যুক্ত হওয়ার আগে ভারতকে বেশকিছু শর্ত জুড়ে দেয় কাশ্মীর। আর সেই সব শর্তের ডকুমেন্টস হলো ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ এবং ৩৫ খ,গ অনুচ্ছেদ। এখন ভারত সেই শর্ত গুলো পুরোপুরি-

অসাংবিধানিকভাবে ভঙ্গ করে ইতিহাসের কলঙ্কময় আক্রমণ চালাচ্ছে কাশ্মীরে, যা দেখে বিশ্ব সম্প্রদায় চুপ থাকতে পারে না। ভারত যখনই অসাংবিধানিকভাবে শর্তগুলো ভঙ্গ করলেন তখনই কাশ্মীরের স্বাধীনতা চাওয়াটা শতভাগ যৌক্তিকতায় চলে আসলো।

শর্ত ভঙ্গ করা মানের কাশ্মীর ৭০ বছর আগের সেই অবস্থানে চলে যাওয়া, আর সেটা হচ্ছে স্বাধীন কাশ্মীর। এটা কখনোই ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় হতে পারে না, বিশ্ব সম্প্রদায়ের চুপ থাকাটা অন্যায়।

আমি বাংলাদেশ সরকারের কাছে অনুরোধ জানাবো কাশ্মীরীদের পাশে থাকার জন্য সরাসরি ঘোষণা দিন। লেখক: ফারুক হাসান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। লেখক: ফারুক হাসান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। সুত্র: স্টুডেন্ট জার্নাল

কাশ্মীর ইস্যুতে মোদিকে সমর্থন জানাল আরব আমিরাত

জম্মু-কাশ্মীরের সাংবিধানিক মর্যাদা বাতিল এবং রাজ্য দুটিকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করার যে সিদ্ধান্ত ভারত সরকার নিয়েছে, তাতে সমর্থন জানিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত।

মঙ্গলবার ভারতে নিযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূতের বরাতে এনডিটিভি এ খবর জানিয়েছে। সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূত ড. আহমেদ আল বান্না বলেন, রাজ্যের পুনর্গঠন স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে কোনও ব্যতিক্রমী ঘটনা নয়।

আঞ্চলিক বৈষম্য দূর করে উন্নতির লক্ষ্যে মূলত এটি করা হচ্ছে।ভারতীয় সংবিধান অনুযায়ী এটি একটি অভ্যন্তরীণ বিষয়। এনডিটিভি বলছে, মুসলিম অধ্যুষিত আরব অঞ্চলের সংযুক্ত আরব আমিরাতের এমন প্রতিক্রিয়া নিঃসন্দেহে ভারতের জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়।

ভারতের মুসলিম নেতারা যখন বিতর্কিত এ বিলটির মাধ্যমে মুসলিম অধ্যুষিত রাজ্যটিকে নিয়ন্ত্রণে আনার অভিযোগ করছেন, সেই পরিপ্রেক্ষিতে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সমর্থনকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসেবে দেখছে বিজেপি সরকার।

এদিকে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত ভারতকে সমর্থন জানালেও মুসলিম বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী দুই দেশ তুরস্ক ও মালয়েশিয়া এর বিরোধীতা করেছে। সোমবার ভারত সরকার কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা (স্বায়ত্বশাসন)

বাতিল করার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। উদ্ভূত পরিস্থিতির বিষয়ে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগানকে অবহিত করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগান কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির ইমরান খানকে বলেন, তিনি জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের জন্য অপেক্ষা করছেন।

এ অধিবেশনের ফাঁকে তিনি ইমরান খানের সঙ্গে একটি বৈঠকে মিলিত হয়ে এ ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করবেন বলে জানিয়েছেন। এদিকে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের যে সিদ্ধান্ত ভারত সরকার নিয়েছে, তা প্রত্যাখ্যান করেছে প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তান।

সোমবার ভারতীয় পার্লামেন্টের রাজ্যসভায় ৩৭০ ধারা বাতিলের প্রস্তাব ও রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের স্বাক্ষরের পর পাকিস্তান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে তা প্রত্যাখ্যান করে। ৩৭০ ধারা বাতিলের তীব্র নিন্দা জানিয়ে পাকিস্তান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে,

কাশ্মীর একটি বিরোধপূর্ণ এলাকা। যা আন্তর্জাতিকভাবে একটি স্বীকৃত বিষয়। বিবৃতিতে বলা হয়, কাশ্মীর বিষয়ে ভারতের একতরফা সিদ্ধান্ত ওই রাজ্যটির বিশেষ মর্যাদা বাতিল করতে পারে না। কাশ্মীরি জনগণ ভারতের এমন সিদ্ধান্ত মেনে নেবে না।

ভারতের একতরফা সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে যে কোনো ধরনের লড়াইয়ে কাশ্মীরি জনগণকে রাজনৈতিক,কূটনৈতিকসহ সর্বপ্রকারের সহায়তা দেয়ারও ঘোষণা দিয়েছে মুসলিম বিশ্বের একমাত্র পরমাণু শক্তিধর দেশ পাকিস্তান।